প্রসঙ্গঃ মুহাম্মদের কার্টুন এবং ইসলামি বিধান ও সংস্কৃতি

১৬ই অক্টোবর শুক্রবার প্যারিসের শহরতলীর একটি হাই স্কুলের শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটিকে মুণ্ডুচ্ছেদ করে হত্যা করা হয়েছে। তাঁকে হত্যা করা হয়েছে কারণ তিনি শার্লি এব্দু পত্রিকায় আঁকা মুহাম্মদের একটি কার্টুন নিয়ে শ্রেণীকক্ষে আলোচনা করেছিলেন। হত্যাকারী একজন চেচেন কিশোর যার বয়স মাত্র ১৭/১৮ বছর। হত্যাকারীর নাম ও পরিচয় জানা যায় নি। হত্যাকারী ঘটনাস্থলেই পুলিশের গুলিতে মারা যায়। ধর্মীয় মৌলবাদ হৃদয়ে লালিত হলে যে কোন ব্যক্তিই সন্ত্রাসী হতে পারে, এই ঘটনা তার বড় প্রমাণ। এই লেখাটিতে লেখক সূত্র অন্বেষণের প্রয়াস রেখেছেন।

প্রসঙ্গঃ মুহাম্মদের কার্টুন এবং ইসলামি বিধান সংস্কৃতি

গিয়াসুদ্দিন   

১৬ই অক্টোবর শুক্রবার প্যারিসের শহরতলীর একটি হাই স্কুলের শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটিকে মুণ্ডুচ্ছেদ করে হত্যা করা হয়েছে। তাঁকে হত্যা করা হয়েছে কারণ তিনি শার্লি এব্দু পত্রিকায় আঁকা মুহাম্মদের একটি কার্টুন নিয়ে শ্রেণীকক্ষে আলোচনা করেছিলেন। হত্যাকারী একজন চেচেন কিশোর যার বয়স মাত্র ১৭/১৮ বছর। হত্যাকারীর নাম ও পরিচয় জানা যায় নি। হত্যাকারী ঘটনাস্থলেই পুলিশের গুলিতে মারা যায়। অবশ্য নাম-ধামে তেমন কিছু যায় আসে না। যে কারণে এবং যে পদ্ধতিতে (মুণ্ডুচ্ছেদ করে) হত্যা করা হয়েছে তাতে তার প্রকৃত পরিচয় জানতে ও বুঝতে অসুবিধা হয় না।

মুহাম্মদের কার্টুন পত্রিকায় ছাপানোর জন্যে ফ্রান্সেরই আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন কার্টুন পত্রিকা শার্লি এব্দু-এর অফিসে একবার বীভৎস হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিলো আইএস জঙ্গিরা। সেটা ছিলো ২০১৫ সালের ৭ই জানুয়ারী। সেই হত্যাকাণ্ডে দশ জন কার্টুনিস্ট ও দু’জন সাংবাদিক সহ মোট বারো জন নিহত হয়েছিলেন। ২০০৫ সালেও একবার ঐ একই কারণে ঐ অফিসেই হামলা চালিয়েছিলো মুসলিম সন্ত্রাসবাদীরা। তাতে অবশ্য প্রাণহানির ঘটনা ঘটে নি। সুতরাং যে ছেলেটি মুহাম্মদের কার্টুন নিয়ে আলোচনা করার জন্যে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে সে যে একজন মুসলমান তা নিয়ে কোনো সংশয় নেই। এটা তো সর্বজন বিদিত যে, মুহাম্মদের সমালোচনায় বিশ্বের তামাম মুসলিম সমাজ প্রবল উত্তেজিত ও অস্থির হয়ে ওঠে এবং গলা থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে হত্যা করা ইসলামি সংস্কৃতি যার প্রচলন হয়েছিলো আরবে ৭ম শতাব্দীতে। 

 ধর্মীয় নেতাদের কার্টুন আঁকা বা সমালোচনা করা গণতন্ত্রে ন্যায়সঙ্গত অধিকার 

কার্টুন তো একটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্প যার মাধ্যমে রাষ্ট্রনায়ক কিংবা সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের জনবিরোধী নীতি ও কার্যকলাপের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো হয়ে থাকে। শুধু প্রতিবাদই নয়, রাষ্ট্রনায়ক, রাজনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের প্রয়োজনে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করার একটি মাধ্যমও। এতে কোনো অন্যায় নেই, এবং গণতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় এটা একটি স্বীকৃত অধিকার। কার্টুন বাক-স্বাধীনতা এবং মতপ্রকাশের অধিকার হিসাবে স্বীকৃতও। তাহলে মুহাম্মদের কার্টুন আঁকা, কিংবা সেই কার্টুন নিয়ে আলোচনা করার মধ্যে দোষ কোথায়? ফ্রান্স একটি গণতান্ত্রিক, উদারনৈতিক ও ধর্মনিরপেক্ষ দেশ যেখানে নাগরিকদের বাক-স্বাধীনতা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সুপ্রতিষ্ঠিত ও অনেক বেশী বিস্তৃত। মুহাম্মদের কার্টুন নিয়ে আলোচনা করে শিক্ষক স্যানুয়েল কোনো বেআইনী কাজ করেন নি তা তিনি বিলক্ষণ জানতেন। তথাপি তিনি মুসলিম শিক্ষার্থীদের বিষয়ে যথেষ্ট সহানুভূতিশীল ছিলেন। তাই আলোচনা শুরু করার পূর্বে তিনি মুসলিম শিক্ষার্থীদের বলেছিলেন যে, তিনি কাউকে আঘাত করতে চান না, যারা মুহাম্মদের কার্টুন নিয়ে আলোচনায় ব্যথিত হতে পারে তারা শ্রেণীকক্ষের বাইরে চলে যেতে পারে।

শোনা যাচ্ছে যে মুহাম্মদের কার্টুন নিয়ে শ্রেণীকক্ষে আলোচনার করার প্রতিবাদে কিছু অভিভাবক স্কুলের বাইরে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলো। কারও কার্টুন আঁকা কিংবা কার্টুন প্রদর্শন করা যেমন মানুষের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে স্বীকৃত অধিকার, তেমনি তার বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ জানানোর অধিকারও গণতন্ত্রে স্বীকৃত। তাই যারা স্কুলের বাইরে জড়ো হয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে তারা ঠিক করেছে না ভুল করেছে তা নিয়ে বিতর্ক চলতেই পারে, কিন্তু তারা আইন লঙ্ঘন করেছে তা বলা যাবে না। কিন্তু সমস্যা হলো এই যে মুসলিমদের প্রতিবাদ সেখানেই শেষ হয়ে যায় নি। মুসলিম সমাজের একজন কিশোর স্কুলের বাইরে সেই শিক্ষকের উপর ধারালো একটি ছুরি কিংবা ছুরির মতন অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। প্রথমে সেই অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে যে আঘাতে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তখন তাঁর গলায় ছুরি চালিয়ে নৃশংসভাবে তাঁর ধড় থেকে মাথা আলাদা করে দেয়।  

মায়া-মমতা বিবেক-বুদ্ধি এসব শব্দ ধর্মান্ধদের অভিধানে নেই

কিশোর ছেলেটি যখন শিক্ষক স্যামুয়েলকে হত্যা করার জন্যে অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে, তখন একবারের জন্যেও কি তার বুকে কাঁপে নি? স্যামুয়েলের জন্যে তার হৃদয়ে কি একটুও মায়া হয় নি? কিংবা হত্যা করার অপরাধে তাকেও যে চরম শাস্তি পেতে হবে সে ভয়েও কি সে বিচলিত হয় নি? না, এ প্রশ্নগুলি আমার নয়, প্রশ্নগুলি সব আম জনতার। আমি বিশ্বাস করি না যে বিবেক-বুদ্ধি, মায়া-মমতা, ভয়-ডর, এসব কথা/শব্দ ধর্মান্ধ মৌলবাদীদের শব্দভাণ্ডারে আছে। বিবেক-বুদ্ধি ও মায়া-মমতা থাকলে কেউ ধর্মান্ধ ও বর্বর হতে পারে তাও মনে করি না। আর পরকালে স্বর্গপ্রাপ্তির হাতছানিতে যারা প্রলুব্ধ তারা তো হেলায় নিজের জীবন উৎসর্গ করতে পারে তার অজস্র দৃষ্টান্ত আমাদের চারিপাশে ছড়িয়ে রয়েছে। সুতরাং ধর্মান্ধদের কাছে বিবেক-বুদ্ধি, ন্যায়-অন্যায় বোধ, কিংবা মায়া-মমতা আশা করা বৃথা।

মুসলিম সমাজ সামগ্রিকভাবে আজও ৭ম শতাব্দীতেই আটকে রয়েছে

মুহাম্মদের কার্টুন আঁকার জন্যে ২০১৫ সালে ফ্রান্সের শার্লি এব্দু পত্রিকা অফিসে মুসলিম সন্ত্রাসবাদীদের গণহত্যা সংঘটিত করা ঘটনাটি মানুষ কবেই ভুলে বসে আছে। এই ঘটনাটিও কিছুদিন পর মানুষ নিশ্চিতভাবেই ভুলে যাবে। কিন্তু এই হত্যাকাণ্ডে মানুষের মনে যে প্রশ্নটির জন্ম হয়েছে (প্রশ্নটি আগেও ছিলো) সেটা সহজে মানুষের মন থেকে যাবে না। প্রশ্নটি হলো, কোনো ধর্ম প্রবর্তককে নিয়ে কার্টুন আঁকা কিংবা তাঁর কার্টুন দেখানো কি খুব গর্হিত কাজ? মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার মতন গর্হিত? বৌদ্ধ, জৈন, খ্রিস্টান ও হিন্দুদের ধর্মপ্রবর্তক, ধর্মপ্রচারক ও দেব-দেবীদের নিয়ে তো কতো কার্টুন আঁকা হয়। তারজন্যে তো কোনো কার্টুনিস্টকে কেউ হত্যা করেছে, কিংবা কেউ হত্যা করতে উদ্যত হয়েছে এমন কথা তো শোনা যায় না। ওই সব কার্টুন আঁকার জন্যে অমুসলিম কোনো সমাজে এমনকি ভয়ঙ্কর কোনো উত্তেজনা বা অস্থিরতাও তো তৈরি না। সরস্বতীর নগ্ন ছবি আঁকার জন্যে হিন্দুদের মধ্যে একবার বড়ো রকমের উত্তেজনা ও অস্থিরতা তৈরি হতে দেখা গিয়েছে। কিন্তু সেটাও একতরফা হয় নি। যারা শিল্পীর বিরুদ্ধে  তীব্র প্রতিবাদ ও উত্তেজনা তৈরি করেছিলো, হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করেছিলো তার বিরুদ্ধে পাল্টা প্রতিবাদও ধ্বনিত হয়েছিলো। তাহলে, মুহাম্মদের কার্টুন আঁকলে, তাঁর কার্টুন দেখালে, কিংবা তাঁর সমালোচনা করলে হত্যা করার ঘটনা ঘটে কেনো? গোটা মুসলিম সমাজই বা কেনো উত্তেজনায় অস্থির ও চঞ্চল হয়ে উঠে উন্মাদের মতন আচরণ করে? এই প্রশ্নটি গোটা বিশ্বকে অনেক দিন থেকে তাড়া করে ফিরছে।        

ধর্মীয় নেতাদের সমালোচনা করলে সমস্ত ধর্মপ্রাণ মানুষরেই ভাবাবেগে আঘাত লাগে, তারা মানসিকভাবে আহত হয়। অতীতে সব ধর্ম সম্প্রদায়ই এ রকম ক্ষেত্রে উত্তেজিত ও অস্থির হয়ে উঠতো। যার দ্বারা ধর্মীয় ভাবাবেগে আহত হতো তাকে চরম শাস্তি না দেওয়া পর্যন্ত তারা শান্ত হতো না। কিন্তু যুগ ও পরিস্থিতির পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে তার পরিবর্তন ঘটেছে। অমুসলিমরা মেনে নিয়েছে যে, তাদের ধর্মগুরুদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করার অধিকার যেমন আছে, তেমনি তাদের ধর্মগুরুদের সমালোচনা করা বা ব্যঙ্গ করার অধিকারও কারও আছে। কিন্তু যুগের পরিবর্তনকে, যুগের পরিবর্তিত চিন্তাধারাকে মুসলমানরা মেনে নিতে আজও পারে নি। মুসলমান সমাজ আজও আটকে রয়েছে ৭ম শতাব্দীর সেই বিশ্বাসে, ধ্যান-ধারণাতেই। অন্য সব ধর্মের ও ধর্মগুরুদের সমালোচনা ও নিন্দা করার অধিকার তাদের আছে, কিন্তু তাদের ধর্ম ও ধর্মপ্রবর্তকের সমালোচনা করার অধিকার কারও নেই, ৭ম শতাব্দীর সেই বস্তাপচা চিন্তা-ভাবনাতেই তারা আটকে রয়েছে।   

 ইসলামের প্রবর্তকের কার্টুন নিয়ে ইসলামের বিধান নিয়ে বিতর্ক           

শিক্ষক স্যামুয়েলের মুণ্ডুচ্ছেদ করার বর্বর ঘটনায় ফ্রান্সের বাইরে তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া এখন পর্যন্ত চোখে পড়ে নি। মুসলিম সমাজের প্রতিক্রিয়াও নয় (লেখাটি যখন শেষ করছি তখন পাকিস্তান ও তুরস্ক সরকারের প্রতিক্রিয়া নজরে পড়লো)। কোনো প্রতিক্রিয়া আসুক না বা না আসুক, একটা প্রশ্ন (ইসলামের প্রবর্তককে ব্যঙ্গ কিংবা তাঁর সমালোচনা করার শাস্তি কি মৃত্যুদণ্ড?) কিন্তু মানুষকে বিদ্ধ করছে। প্রশ্নটির দু’রকম উত্তর শুনতে পাওয়া যায়। একটা হলো, হ্যাঁ, আর একটা, না। স্বভাবতই মানুষ বিভ্রান্ত। একদল মুসলিম বুদ্ধিজীবী ও লেখক বলেন যে ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম, ইসলাম হিংসা ও হত্যাকে সমর্থন করে না। তাঁরা আরও দাবি করেন যে, মুহাম্মদ পৃথিবীতে এসেছিলেন আল্লাহ্‌র প্রেরিত শান্তির দূত হয়ে। সুতরাং যে হত্যা করেছে তার দায় কেবল তারই, ইসলামের নয়। বিশ্বের রাষ্টনেতা এবং বুদ্ধিজীবীরা ওই বুদ্ধিজীবীদের সঙ্গেই গলা মিলিয়ে থাকেন। সারা বিশ্বের প্রধান সংবাদ মাধ্যমগুলিও এই কথাগুলিকে আপ্তবাক্য জ্ঞানে নিরলস প্রচার করে। কিন্তু যারা হত্যা করে তারা তো দ্ব্যর্থহীনভাবে জানায় যে নবীর সমালোচনাকারী ও বিদ্রুপকারীদের শাস্তি একমাত্র মৃত্যুদণ্ডই। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, কোন উত্তরটি সঠিক?  

প্রসঙ্গত একটা কঠিন অপ্রিয় সত্যি কথা এখানে না বলে পারছি না। কথাটা হলো, রাজনৈতিক নেতারা কদাচিৎ সত্যা কথা বলেন। বিশেষ করে মুসলিমদের ধর্মীয় ভাবাবেগের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সত্য কথা কখনও তাঁরা বলেছেন বলে শুনি নি। সততা ও সত্যতা এবং দলীয় স্বার্থের দ্বন্দে দ্বিতীয়টাই তাঁদের সর্বদা প্রথম অগ্রাধিকার। স্বভাবতই ইসলামের বিধান নিয়ে তাঁরা যা বলেন তার সত্যতা নিয়ে মনে সংশয় জাগে। অপরদিকে যুক্তির দিক থেকে বিচার করলে মুসলিম সমাজের সন্ত্রাসবাদী ধর্মীয় নেতাদের কথা অপেক্ষাকৃত অধিক বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে হয়। কারণ যেহেতু তাদের সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে প্রতি পদক্ষেপেই জীবনের ঝুঁকি থাকে, তারা ইসলামের নামে কেন মিথ্যা বলবে? তাছাড়া, কোরান, হাদিস ও ইসলামের ইতিহাসে তারা এক একজন বিশেষজ্ঞ পণ্ডিত, কেউ কোরান-হাদিস মুখস্থ করা স্বল্প শিক্ষিত কাঠমোল্লা নয়। শুধু ইসলামি শিক্ষা ও জ্ঞানেই নয়, আধুনিক শিক্ষা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যাতেও তারা উচ্চশিক্ষা ও জ্ঞানের অধিকারী।  

 ইসলামের প্রবর্তকের কার্টুন সম্পর্কে ইসলামে যে স্পষ্ট বিধান রয়েছে

মুহাম্মদের কার্টুন আঁকা কিংবা তা প্রচার করা ইসলামের বিধানে শাস্তিযোগ্য কোনো অপরাধ কিনা, এবং যদি তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হয় তবে সে শাস্তি মৃত্যুদণ্ড কিনা তা জানার জন্যে ইসলামের ওপর বিশেষজ্ঞ হবার দরকার নেই। মুহাম্মদের জীবনী পড়লেই তার উত্তর পাওয়া যায়। তবে প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য যে, তাঁর কার্টুন নিয়ে সরাসরি কোনো বিধান পাওয়া যাবে না। সেটা পাওয়া যাবে না কোরান ও হাদিসেও। কারণ কোরান ও হাদিসের যুগে কার্টুনের প্রচলন হয় নি। কিন্তু মুহাম্মদের সমালোচনা বা বিরোধিতা করা, কিংবা তাঁকে ব্যঙ্গ করা নিয়ে ইসলামের কী বিধান তা জানা যায় তাঁর জীবনী থেকে। যা জানা যায় তা এ রকম। মক্কা ও মদিনার কুরাইশ এবং ইহুদী সম্প্রদায়ের যে কবিগণ মুহাম্মদকে নবী বলে স্বীকার করেন নি, উল্টে তাঁর সমালোচনা ও বিরোধিতা করতেন, তাঁকে ব্যঙ্গ করতেন তাঁদের সবাইকেই নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিলো। যে কবিদের হত্যা করা হয়েছিলো তাঁদের কয়েকজন হলেন মহিলা কবি আসমা বিন মারওয়ান, কবি আফাক, কা ইবন আশরাফ, কবি আবু রফি বিন আবি হুকাই, আল-নাজির ইবন আল-হারিস, উকবা বিন আবু মুয়াত প্রমুখ। মুসলমানদের হাতে নিহত শেষোক্ত দু’জন ছিলেন মক্কার কুরাইশ সম্প্রায়ভুক্ত। তাঁরা বদর যুদ্ধে মুহাম্মদের সৈন্যদের হাতে যে সত্তরজন বন্দি হয়েছিলেন তাঁদের মধ্যে ছিলেন। ৬৮জন বন্দিকে (একজন ছাড়া) মুহাম্মদ মুক্ত করে দেন মোটা মুক্তিপণের বিনিময়ে। কিন্তু আল-নাজির ইবন আল-হারিস, উকবা বিন আবু মুয়াত মুক্তিপণ দিতে সম্মত হলেও তাঁদের মুক্তি না দিয়ে হত্যা করা হয়। আল-নাজির ইবন আল-হারিসের অপরাধ ছিলো তিনি তাঁর লেখা গল্পে মুহাম্মদের সমালোচনা করেছিলেন, আর উকবা বিন আবু মুয়াতের অপরাধ ছিলো এই যে, তিনি একবার মুহাম্মদ যখন নামাজ পড়ছিলেন তখন তাঁর গায়ে  মৃত পশুর নাড়ীভুঁড়ি নিক্ষেপ করেছিলেন। বদর থেকে মদিনায় ফেরার পথে রাস্তাতেই আল-নাজির ইবন আল-হারিসকে হত্যা করা হয়েছিলো মুহাম্মদের নির্দেশে। কা’ব ইবন আশফাক ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন এবং মক্কা থেকে মদিনায় হিযরতও করেছিলেন। তবুও তাঁকে হত্যা করা হয়েছিলো, কারণ তিনি উক্ত দু’জন যুদ্ধবন্দিকে হত্যা করার বিরোধিতা করেছিলেন। এইসব হত্যাকাণ্ডগুলির উল্লেখ রয়েছে ইবন হিসাম ও ইবন ইশাক কর্তৃক লেখা মুহাম্মদের জীবনীতে। মুহাম্মদের অন্যান্য জীবনীকারদের লেখাতেও এগুলির উল্লেখ পাওয়া যায়। বদর যুদ্ধের দু’জন যুদ্ধবন্দিকে হত্যা করার ঘটনার উল্লেখ রয়েছে ডঃ ওসমান গণীর মহানবী গ্রন্থে। তিনি লিখেছেন,

  • “বন্দীদের সকলকেই মদিনায় আনা হয়েছিল একমাত্র দু’জন ব্যতীত, উকবা বিন আবি মুয়াইত এবং নজর বিন হারিস। যারা সবসময় মক্কাতে মুসলমানদের প্রতি নিদারুণ নির্যাতন করেছিল এবং হযরত মহম্মদ (দঃ) ও কোরআন শরীফের প্রতি অকথ্য ভাষায় গালাগালি করত। তাদের পথিমধ্যে মৃত্যদণ্ডে দণ্ডিত করা হলো।” (পৃষ্ঠা – ২৪৭)

 

ইহুদি কবিদের হত্যা করার ঘটনারও উল্লেখ রয়েছে ডঃ ওসমান গণীর মহানবী গ্রন্থে। তিনি লিখেছেন - 

  • “সেই সময় কাব বিন আশরাফ ও আবু আফাক নামে দু’জন এবং আসমা বিন মারওয়ান নামক একজন স্ত্রীলোকও তাদের  যোগ দিল, তারা সকলে মিলে সুন্দর সুন্দর গান লিখতে আরম্ভ করল – ... তাদের উদ্দেশ্য ছিল – রাজদ্রোহিতা সৃষ্টি করা, যার শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।
  • মুসলমানগণ নির্ভীক চিত্তে এগিয়ে যাচ্ছিল যে কোন অবস্থার সম্মুখীন হতে। এতে তাদের এতটুকু অসুবিধা ছিল না। তারা একদিন গোপনে ওই তিনজনকেই ইহজগৎ পার করে দিল। যদিও এখানে মহানবীর কোন নির্দেশ ছিল না। এটা আল্লাহ্‌র ইচ্ছানুযায়ী হয়েছে।” (পৃষ্ঠা – ২৫৪)   

ডঃ গণী হত্যার দায় থেকে তাঁর মহানবীকে মুক্তি দিয়ে দায় চাপিয়েছেন আল্লাহ্‌র ওপর। অথচ তিনিই লিখেছেন তাদের শাস্তি হলো মৃত্যুদণ্ড। কী নির্লজ্জ দ্বিচারিতা ও মিথ্যাচারিতা! এমন মিথ্যাচারিতা সচরাচর অন্য জীবনীকারদের মধ্যে দেখা যায় না। কা’ব নামক একজন কবিকে হত্যার নির্দেশ যে স্বয়ং মুহাম্মদের কাছ থেকেই এসেছিলো তা অকপটে লিখেছেন মুহাম্মদের জীবনীকার কবি গোলাম মোস্তফা। তিনি বিশ্বনবী গ্রন্থে কবি কা’বকে হত্যা প্রসঙ্গে লিখেছেন –

  • দুষ্ট কবি কা’ব ... সিরিয়া হইতে সে গোপনে গোপনে মদিনায় ফিরিয়া আসিয়া কয়েকজন গোত্রপতিকে নিজেদের দলে ভিড়াইবার চেষ্টা করিল। ... হযরত এবার আর তাহাকে ক্ষমা করিলেন না। এই স্বদেশদ্রোহী ভণ্ড নীচমনা, ষড়যন্ত্রীকে প্রাণদণ্ডের আদেশ দিলেন। (পৃষ্ঠা – ১৬৮)

এখন ইন্টারনেটের যুগ, অনুসন্ধান করলে সবকিছুই জানা যায়। মুহাম্মদের নির্দেশেই যে হত্যাকাণ্ডগুলি সংঘটিত হয়েছিলো তার প্রমাণ গুগল সার্চ করলেই পাওয়া যাবে। মহিলা কবি আসমা বিন মারওয়ানকে ঘুমন্ত অবস্থায় তাঁর ঘরে ঢুকে হত্যা করা হয়েছিল। যখন তাঁকে হত্যা করা হয় তখন তাঁর এক শিশু সন্তান তাঁর বুকের দুধ পান করছিলো। হত্যাকারী উমার বিন আদি আল-খাতমি সেই শিশুকে আসমার বুক থেকে টেনে ফেলে দিয়ে তাঁকে হত্যা করেন। এ প্রসঙ্গে  তথ্য সংগ্রহ করেছে মুহাম্মদের জীবনীকার ইবন ইশাকের লেখা মুহাম্মদের জীবনী থেকে। উইকিপিডিয়া যা জানাচ্ছে –

  • He crept into her room in the dark of night where she was sleeping with her five children, with her infant child was closed to her bosom. Umayr removed the child from Asma’s breast and killed her.  

আসমার হত্যাকারী উমারকে হত্যা করার নির্দেশ দিয়েছিলেন স্বয়ং মুহাম্মদই। কেন এবং কখন সে নির্দেশ দিয়েছিলেন সে প্রসঙ্গে ইবন ইশাকের লেখা থেকে উইকিপিডিয়া জানাচ্ছে –  

  •  The story of Asma bint Marwan and her death appears in the works of Ibn Ishaq and Ibn Sa’d. According to the accounts, her family viewed Muhammad and his followers as unwelcome interlopers in Medina. After the Muslim victory over the Quraysh in Mecca in 623 in the battle of Badre, a number of Muhamad’s opponent was killed. In response, she composed poems that publicly criticized the local tribesmen who converted to Islam and allied with Muhammad, calling for his death. In her poems she ridiculed Medinians for obeying a chief not of her kin.     Ibn Ishaq mentions that bint Marwan also displayed disgust after the Medinan Abu Afak for inciting rebellion against Muhammad. The poem said, “Do you expect good from Muhammad after the killings of your chief” and asked, “Is there no man of pride who would attack him by surprise/And cut off the hope of those who expect aught from him?” Upon hearing the poem, Muhammad then called for her death in turn, saying, “Who will rid me of Marwan’s daughter?”   

বৃদ্ধ কবি আবু আফাককে মুহাম্মদের নির্দেশেই যে হত্যা করা হয়েছিলো প্রমাণ রয়েছে ইবন ইশাকের লেখা মুহাম্মদের জীবনীতে। ইবন ইশাক এবং তাঁর সমসাময়িক মুহাম্মদের জীবনীকারদের লেখা থেকে ইসলামের ইতিহাস এবং মুহাম্মদের সম্পর্কে যা জানা যায় তা অনেক বেশী প্রামাণ্য। কারণ, তাঁরা কিছু গোপন করেন নি। ইবন ইশাকের লেখার থেকে তথ্য নিয়ে আবু আফাকের হত্যার ঘটনা সম্পর্কে উইকিপিডিয়া জানাচ্ছে –  

  • Abu Afak (died in 624) was a Jews poet who lived in the Hijaz region. Abu Afak did not convert to Islam and was vocal about his opposition to Muhammad. He became apolitical enemy of Muhammad.

As an elderly man, Abu Afak Arwan wrote a politically charged poem against Muhammad and his followers that is preserved in the Sira. Muhammad then allegedly called for Abu Afak’s death, and Salim bin Umayr killed him. The affair was recorded by Ibn Ishaq in “Sirat Rasul Allah” (The Life of the Prophet of God) the oldest biography of Muhammad.

মুহাম্মদের নির্দেশে ইহুদী কবিদের হত্যা করার ঘটনার উল্লেখ পাওয়া যায় হাদিসেও (ইসলামের দ্বিতীয় ধর্মগ্রন্থ)। লেখা বড়ো হচ্ছে তাই বেশী হাদিস উদ্ধৃত করা বাঞ্ছনীয় হবে না। তাই শুধু কা’ব ইবন আশরাফকে হত্যা করা সম্পর্কে একটা হাদিস থেকে কিছুটা অংশ উদ্ধৃত করা হলো। হাদিসটি হলো -   

  • হযরত জাবির ইবনে আবদুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, - একদিন রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন – কা’ব ইবনে আশরাফকে হত্যা করার জন্য কে প্রস্তুত আছ? সে আল্লাহ্‌ ও তাঁর রাসূলকে অনেক কষ্ট দিয়েছে। মুহাম্মদ ইবনে মাসলামা (রাঃ) উঠে বললেন, হে আল্লাহ্‌র রাসূল! আপনি কি চান, আমি গিয়ে তাকে হত্যা করি? তিনি বললেন, হ্যাঁ, তখন মুহাম্মদ ইবনে মাসলামা (রাঃ) বললেন, তা হলে এ ব্যাপারে আমি যা ভাল মনে করি আমাকে তা বলার অনুমতি দিন।।রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন – হ্যাঁ, বলো। ... এবার তিনি তার মাথার চুল দৃঢ় মুষ্টিতে ধরে সঙ্গীদেরকে বললেন, এবার নাও, তখন তারা তাকে হত্যা করল এবং নবী করীম রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম – এর কাছে ফিরে এসে তার হত্যার সুখবর জানাল। (দ্রঃ বোখারী শরীফ, ১ম থেকে ৭ম খণ্ড একত্রে, মল্লিক ব্রাদার্স, কলকাতা, হাদিস নং ২০১৬,)   

উপরে যে সর্বাধিক বিশ্বাসযোগ্য এবং প্রামাণ্য তথ্যগুলি আলোচনা ও উদ্ধৃত করা হয়েছে তা থেকে নিঃসংশয়ে এটা প্রতীয়মান হয় যে, মুহাম্মদের সমালোচনা ও বিরোধিতা করা এবং তাঁকে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করা শুধু শাস্তিযোগ্য অপরাধই নয়, তার শাস্তি হলো মৃত্যদণ্ড। আর মুহাম্মদকে যারা ব্যঙ্গ করে, কিংবা তাঁর সমালোচনা ও বিরোধিতা করে তাদের হত্যা করা শুধু একটা অমানবিক বিধানই নয়, সেটা একটা সংস্কৃতিও যার প্রচলন করেন স্বয়ং মুহামদ।  

ইংরাজী শব্দ কার্টুন (Cartoon) - এর অর্থ ব্যঙ্গচিত্র। বলা বাহুল্য যে মুহাম্মদের কার্টুন আঁকার উদ্দেশ্যই হলো তাঁকে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করা, কিংবা তাঁর নীতি ও কার্যাবলীর সমালোচনা করা। সুতরাং মুহাম্মদের কার্টুন আঁকা, তা প্রদর্শন করা ইসলামের বিধানে স্পষ্টতই মৃত্যুদণ্ডযোগ্য অপরাধ।

ফ্রান্সের কড়া প্রতিক্রিয়া কঠোর পদক্ষেপ

ফ্রান্সের সরকার স্যামুয়েল প্যাটির বর্বর হত্যাকাণ্ডে মুসলিম সংগঠন ও মুসলিমদের বিরুদ্ধে অত্যন্ত কড়া মনোভাব ও অবস্থান গ্রহণ করেছে। ফ্রান্সের সরকার স্যামুয়েল প্যাটির পাশে দাঁড়িয়েছে এবং তাঁকে সে দেশের মরণোত্তর সর্বোচ্চ সম্মানে ভূষিত করেছে। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রন ‘ইসলামপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদ’ - এর লড়াইয়ের ঘোষণা দিয়েছেন। তাঁর এই ঘোষণার পরই ফ্রান্সের পুলিশ প্রশাসন গোটা দেশ জুড়ে ব্যাপক অভিযান শুরু করেছে। ফ্রান্সে ইতিমধ্যেই ৭৩টি মসজিদ এবং ইসলামিক স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন যে ফ্রান্স থেকে ২৩১ জন বিদেশীকে বহিষ্কার করা হবে যাদের মধ্যে ১৮০ জন জেলে আছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রন কিছুদিন আগেই মন্তব্য করেছিলেন যে, বিশ্বজুড়ে ইসলাম সংকটে রয়েছে। তিনি এটাও জানিয়ে ছিলেন যে মসজিদগুলোর বৈদেশিক তহবিল নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সরকার দেশটির বিভিন্ন স্কুল ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নিয়ন্ত্রণে নেবে।

ফ্রান্সের জনগণও মানুষও এই হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ও ক্রোধে ফুঁসছে। ক্রোধান্বিত ফরাসিরা বেশ কয়েকটি মসজিদেও আক্রমণ করে। তারা নিহত শিক্ষকের কাজকে সমর্থন ও তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে নানা কর্মসূচী নিয়েছে। ফ্রান্সের শহর মন্টপিলিয়ার আর টাউলুসে প্রয়াত শিক্ষককে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেওয়ার জন্য হোটেলের দেওয়ালে শার্লি এব্দুর বানানো মুহাম্মদের বিতর্কিত কার্টুনটি প্রজেক্টরের মাধ্যমে দেখানো হচ্ছে। যারা এই কর্মসূচীটি  গ্রহণ করেছে তাদের মুখপাত্র বলেন যে, ‘এই প্রতীকী পদক্ষেপটি ছাড়াও আমি আমার সহকর্মীদের কাছে একটি বার্তা পাঠাতে চাই যে ধর্মনিরপেক্ষতা, মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং বিবেকের স্বাধীনতা নিয়ে কোনো আপোষ করা হবে না। এটাই আমাদের প্রজাতন্ত্রের মডেলের ভীত।” তিনি আরও বলেন, যারা ধর্মকে যুদ্ধের অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করে তাদের সামনে আমরা দুর্বল হব না। এই প্রজাতন্ত্রকে নষ্ট করার রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আছে এমন লোকের সামনে রুখে দাঁড়াতে হবে। ফরাসী সরাকার এবং ফরাসী জনগণের কঠোর মনোভাব ও অবস্থান দেখে ফ্রান্সের মুসলিমরা সম্মিলিত শাস্তির আশংকা করছে। ফ্রান্স জুড়ে তারা আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। এই গণ আতঙ্ক গণতন্ত্রে কাম্য নয়।         

যে সংবাদ সূত্রগুলির সাহায্য নেওয়া হয়েছে - 

https://m.dailyhunt.in/news/india/english/india-epaper-india/french+teacher+beheaded+for+displaying+caricatures+of+prophet+mohammed+in+class+president+macron+calls+it+terrorist+attack-newsid-n222624938?s=a&uu=0xc984b92292303fec&ss=pd

https://m.dailyhunt.in/news/india/bangla/aponzone+patrika-epaper-aponzon/73ti+masajid+bandh+karal+phrans-newsid-n223842838?s=a&uu=0xc984b92292303fec&ss=pd

      https://m.dailyhunt.in/news/india/bangla/banglahunt-epaper-banhun/phranse+chalache+abhinab+pratibad+shaharer+rastay+rastay+dekhano+hacche+payagambarer+bitarkit+kartun-newsid-n223882862?s=a&uu=0xc984b92292303fec&ss=pd

প্রচ্ছদ ছবি- স্যামুয়েল প্যাটির অস্থায়ী স্মারক স্থল, এরিক গেইলার্ড, রয়টার্স   

 

 

 

 

                             

 

  

 

           

About author
Generic placeholder image
আমরা: এক সচেতন প্রয়াস
AAMRA is an amalgamation of multidisciplinary team of researchers and activists erstwhile worked as an assemblage of movement, research and activism. Popular abbreviation of AAMRA is, An Assemblage of Movement Research and Appraisal.
Do you want to get informed about new articles?

Most Viewed
0 Comments
Leave a reply